সিংগাইরে দলীয় কোন্দলে শোক দিবস ও ২১ আগষ্টের হামলার আলোচনাসভা পন্ড

Feature Image

মানিকগঞ্জ থেকে জালাল উদ্দিন ভিকু : মানিকগঞ্জের সিংগাইরে আওয়ামীলীগের অভ্যন্তনীর কোন্দলের পন্ড হয়ে গেছে ২১ আগষ্টের গ্রেনেড হামলা ও ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা। আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশংকায় পুলিশ ৩ জনকে আটক করেছেন। এরা সবাই আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুলের অনুসারী। টুটুল গ্রুপ ও এমপি মমতাজ গ্রæপের নেতাকর্মীরা রবিবার ২০ আগস্ট একই স্থানে শোক সভা ডাকেন। দুই গ্রæপের উত্তেজনায় শেষ পর্যন্ত শোক সভাটি পন্ড হয়ে গেছে।

আওয়ামীলীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুলের অভিযোগ, স্থানীয় এমপি মমতাজ ও তার অনুসারীরা জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার দিবসের পূর্ব নির্ধারিত অনুষ্ঠান ভুল্ডুল করে দিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা অবনতির দোহায় দিয়ে দলের ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হচ্ছেন, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুল গাফফার খান (৪২),ধল্লা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম (৩০) ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুস সামাদ (৪১)। মরহুম আজিমুদ্দিন মেম্বার স্মৃতি সংঘের ব্যানারে জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে রবিবার বিকালে ধল্লা ইউনিয়ন কাউন্সিল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই শোক সভার তাকে প্রধান অতিথি করা হয়। আর বিশেষ অতিথি করা হয় সিংগাইর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মুশফিকুর রহমান খান হান্নানকে। তাতে ক্ষুব্ধ হন স্থানীয় এমপি মমতাজ বেগম ও তার অনুসারীরা। এমপি মমতাজের হস্তক্ষেপে তার অনুসারী নেতারা যুবলীগের ব্যানারের একই স্থানে কর্মসূচি ঘোষনা করেন। এতে বন্ধ হয়ে গেলো শোক সভাটি।

এব্যাপারে মানিকগঞ্জ-২ আসনের এমপি মমতাজ বেগম জানান, দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল দলীয় ব্যানারে কোন কর্মসুচি পালন করেন না । কর্মসূচির নামে তিনি দলের বিরুদ্ধে কথা বলেন। ধল্লা ইউনিয়ন কাউন্সিল উচ্চ বিদ্যালয়ে সোমবার শোক সভার আয়োজন করেছে উপজেলা যুবলীগ । ওই সভায় তাকে প্রধান অতিথি করতে চেয়েছিল যুবলীগের নেতারা। কিন্তু অন্য কর্মসূচি থাকায় তিনি ওই অনুষ্ঠানে যেতে পারবেন না। তাই ওই সভায় প্রধান অতিথি করা হয়েছে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তামজিদ উল্লাহ প্রধান লিল্টুকে। দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুলের কোনো কর্মসূচির বিপরীতে তিনি পাল্টা কর্মসূচি দেননি এবং পুলিশ দিয়ে কর্মসূচি বানচাল বা তার কর্মীদের ধরিয়ে দেয়ননি।

সিংগাইর উপজেলার দলীয় একাধিক নেতা ও ধল্লা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২১ আগস্ট বিকেলে ধল্লা ইউনিয়ন কাউন্সিল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক ক্রীড়া ও যুব বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল অনুসারীরা মরহুম আজিমুদ্দিন মেম্বার স্মৃতি সংঘের ব্যানারে জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে শোক সভার সময় নির্ধারন করেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুলের উপস্থিত থাকার কথা। টুটুলের শোকসভা পন্ড করতে ধল্লা ইউনিয়ন যুবলীগের একাংশ ওই মাঠে একই দিনে আলোচনা সভা ডাকেন। তাতে প্রধান অতিথি থাকার কথা এমপি মমতাজ বেগম। রোববার সকাল থেকে একই মাঠের দু’প্রান্তে ম তৈরি করতে গেলে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।এ সময় সিংগাইর থানার এসআই গাজী মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ আইনশৃঙ্খলার অবনতির আশংকায় ৩ জনকে আটক করেন।

এব্যাপারে সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার ইমাম হোসেন সাংবাদিকদের কাছে জানান, একই স্থানে বিবাদমান দুই গ্রæপের অনুষ্ঠান কর্মসুচি ঘোষনা করছেন। আইনশৃংখলা পরিস্থিতি অবনতির আংশকায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতরা কে কোন গ্রæপ করেন এটা দেখার বিষয় নয়। আটককৃতদের আদালতে সোপর্দ করা হবে বলে তিনি জানান। উত্তেজনা এড়াতে ওই স্থানে কোনো অনুষ্ঠান না করার জন্য বলা হয়েছে।

আরো খবর »