১৫ বছর পর দেশে ফিরলেও বাড়ি ফেরা হলো না প্রবাসী আবুল কালামের

Feature Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে জাফরিন আক্তার রোজী: আবুল কালামের বাড়ীর সকল মানুষ ও আত্বীয় স্বজন অনেক আনন্দ অনেকদিন পর বাড়ী আসবে তাই তার স্বজনরা ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে যায় তাকে এগিয়ে আনারজন্য।

কিন্তু হঠাৎ করে একটি দূর্ঘটনা বদলে দিলো পরিবারটির সবকিছু। হাসীর বদলে চলে এলো কান্নার জুয়ার।

ব্রাহ্মণবাড়ীয়া নবীনগর উপজেলার শিবপুর পুর্ব-দক্ষিন পাড়ার আঃরেহমান এর ছেলে আবুল কালাম, শনিবার সৌদিআরব থেকে বাড়ী ফেরার পথে ব্রাহ্মণবাড়ীয়া ধরখার নামক স্থানে ভোর ৫ টা ৩০ মিনিটে চালকের বেপরোয়া গতির কারনে মাইক্রো-বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পাশের একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে মুহুর্তেই চুর্ণ-বিচুর্ণ হয়ে যায় মাইক্রো-বাসটি।দূর্ঘটনাস্থলেই সৌদি ফেরত আবুল কালাম(৩৭) নিহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা ও তার স্বজনরা জানান, শনিবার ভোররাতে ঢাকা থেকে শিবপুর আসার পথে বেপরোয়া গতি ও রাত্রিকালীন চালকের নির্ঘুম থাকায় মাইক্রোবাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে এই দূর্ঘটনা ঘটে। দূর্ঘটনা স্থলের স্থানীয়দের সহযোগীতায় আবুল কালামের ভাই মিজানুর রহমান

এবং মাহফুজু রহমান, হারেছ মিয়া ও মনির হোসেন কে মাইক্রোবাসের ভিতর থেকে গুরুত্বর

আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। দূর্ঘটনার স্থলেই আবুল কালামের মৃত্যু হয়। মাইক্রো-বাসটির চালক ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

নিকটাত্মীয় স্বজনেরা জানান মিজানুর রহমান(৩৫) , মাহফুজুর রহমান (১৫) হারেছ মিয়া (১৮) সংকটাপন্ন অবস্থায় বর্তমানে ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জনাব মিজানুর রহমান শিবপুর এলাকার সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দীন খাঁ স্মৃতি সংসদের সন্মানীত সদস্য।

তার অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে আইসিউতে নেওয়া হয়েছে। এই দূর্ঘটনায় পুরো শিবপুর গ্রামে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

আরো খবর »