গাজীপুরে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) অনুমোদন, পর্যাপ্ত শিক্ষক নিয়োগসহ বিভিন্ন দাবিতে গাজীপুরের সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নেমেছেন।

সোমবার সকাল থেকে তারা ক্লাস বর্জন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।

এর আগে শনিবার আন্দোলনে নামেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সিটি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মেডিকেল কলেজের চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. ওসমান জানান, বিডিএমসি কলেজ শুরুর পর প্রথম দুই বছরের জন্য একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রাথমিক অনুমোদন দেয়। কিন্তু শর্ত পালন না করায় গত দুই শিক্ষা বছর ধরে তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম ব্যাচের শিক্ষার্থী ভর্তি ও একাডেমিক কার্যক্রমের অনুমোদন বা রেজিস্ট্রেশনের অনুমতি দেয়নি। এতে তাদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এ কলেজে নেপাল ও ভারতের অন্তত ২৭জন শিক্ষার্থীসহ তিন শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছেন। ওই তিন ব্যাচের অনুমোদন ও রেজিস্ট্রেশনের শর্তপূরণের জন্য কলেজের অধ্যক্ষ, চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের বিভিন্ন সময় তাগিদ দিলেও এ ব্যাপারে কোনো সাড়া না পেয়ে ওই আন্দোলন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

সোমবার ১১টার মধ্যে এ ব্যাপারে ব্যবস্থাপনা পরিচালক কিংবা চেয়ারম্যান স্ব-শরীরে হাজির হয়ে সুস্পষ্ট কোনো জবাব না দিলে শিক্ষার্থীরা বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচি দেয়ার আল্টিমেটামও দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে কলেজ কর্তৃপক্ষের গাফিলতির অভিযোগ এনে শিক্ষার্থীরা তিনদিন ধরে কর্মসূচি পালন করছেন এবং তা দ্রুত সমাধানের দাবি জানিয়েছেন।

কলেজ সেক্রেটারি অশোক কুমার রায় বলেন, বিএমডিসি এ কলেজ প্রতিষ্ঠার পর প্রথম দুই বছর ছাড়া অন্য শিক্ষা বর্ষের জন্য অনুমোদন না দিলেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ২০১৩-২০১৪ এবং ২০১৪-২০১৫ শিক্ষা বর্ষের জন্য শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমোদন দিয়েছে।

তবে পরবর্তী শিক্ষাবর্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পর বিএমডিসি তাদের সিদ্ধান্ত জানাবে।

তিনি চেয়ারম্যান ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীরের বরাত দিয়ে জানিয়েছেন, আগামী এক-দুই বছরের মধ্যে শর্ত পালন করে কলেজটিকে দেশের প্রথম শ্রেণির মেডিকেল কলেজে পরিণত করা হবে।

জয়দেবপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, সকালে শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি ক্লাশ বর্জন করলেও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। পরে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

শনিবার থেকে ওই কর্মসূচি শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা। রোববার কর্মসূচি চলাকালে শিক্ষকদেরও কলেজে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরা কলেজের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »