সোলারের আলোয় আলোকিত আদিবাসীর গ্রাম

Feature Image

রানীশংকৈল:  ঠাকুরগাওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার আদিবাসিদের বসবাস। পল্লীর এক নির্জন প্রান্ত। প্রধান শহরের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থার সমস্যা না হলেও বিদ্যুৎ সংযোগ হয়নি তাদের গ্রামে। আদিবাসি সম্প্রদায়ের ছেলে মেয়েরা পিতা মাতার অভাবি সংসারের কাজে যথা সাধ্য হযোগিতা করার পরও তারা শিক্ষার প্রতি ঝুঁকে পড়েছে। ওরা আজকাল আর পিছিয়ে নেয়। তারা নিয়মিত স্কুলে যাচ্ছে। পড়ালেখা শিখে সমাজে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে। পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলায় কৃতিত্ব অর্জন করছে। কিন্তু বিদ্যুতের সুযোগ সুবিধা থেকে তারা বঞ্চিত।

 

সন্ধ্যা হলেই কুপি জ্বালিয়ে পড়ালেখা করতে বসতে হয়। বিষয়টি সংরক্ষিত ৩০১ আসনের সাংসদ মোছাঃ সেলিনা জাহান লিটার নজরে আসে। বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে তিনি আদিবাসিদের পুরো গ্রাম জুড়ে সৌরবিদ্যুতের আলোর ব্যবস্থা করলেন। বিকালে স্কুল ছুটির পর বাড়ি এসেই আগামীকালকের পড়াগুলো মুখস্ত করতে হতো। পড়া মুখস্ত করতে করতে সন্ধা গড়িয়ে যেতে খেলাধুলার কোন সুযোগ পেতাম না। তাই মনটা খুব খারাপ হয়ে যেতো। অন্যরা বিকেলে খেলাধুলা করলেও আমি পড়ার চাপে খেলতে পারতাম না। এখন তা আর করতে হয়না। আমি বিদ্যালয় থেকে এসেই খেলতে পারি কারণ আমাদের বাসায় লিটা এমপি ফ্রি সৌর বিদ্যুৎ দিয়েছে।

 

তাই আমি রাতে সৌর বিদ্যুতের বাতি জ্বালিয়ে পড়াশুনা করতে পারি। এ কথাগুলো শুক্রবার সন্ধায় আমাদের প্রতিবেদকে বলছিলেন ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল উপজেলার নন্দুয়ার ইউপি’র ভালা পাড়া গ্রামের লক্ষীরাম মর্মূ’র কণ্যা ৬ষ্ট শ্রেণীর স্কুল পড়–য়া শিক্ষার্থী পিরিনা মর্মূ(১২)। ঐ শিক্ষার্থী তাদের ভাষায় আরো বলেন, (লিটা এমপি আলে আতুরে আইমা ওরারে সৌর বিদ্যুতে এ এম আকাদা) লিটা এমপি আমাদের গ্রামে অনেক বাড়ীতে সৌর বিদ্যুৎ দিয়েছেন যে কারনে আমার মতো অনেক শিক্ষার্থীর পড়াশুনায় অনেক সুবিধা হয়। একই ভাবে নবম শ্রেণীর বিদ্যালয় পড়–য়া বিপলাল বলেন, লিটা এমপি কৃর্তক সৌর বিদ্যুৎ পাওয়ায় আমরা শিক্ষার্থীরা অনেক সুবিধাজনক ভাবে পড়াশুনা করতে পারছি। ইতিপূর্বে আমাদের বিকেলেই পড়া মুখস্ত করতে হতো।

 

না হলে সন্ধা বেলা হারিকেন জ্বালিয়ে পড়তে হতো এছাড়াও আমরা গরিব মানুষ সব সময় তেল কিনে আনতে পারতো না আমার বাবা। তাই আমরা এমপি সেলিনা জাহান লিটার প্রতি চরম কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। কারন তিনি আমাদের বিনে পয়সায় সৌর বিদ্যুতের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। একইভাবে ঐ গ্রামের অভিভাবক মহল সম,যোসেফ মাসদা,সামু,গণেশ মার্দি বলেন,ইতিপূর্বে আমাদের জন্য কেউ এমন উদ্যোগ নেননি আমরা অনেক সরকারী সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছি। কিন্তু এখন লিটা এমপি আমাদের দিকে সু দৃষ্টিতে দেখে সৌর বিদ্যুৎ স্থাপন করে দেওয়ায় আমাদেরসহ ছেলে মেয়েদের পড়াশুনায় অনেক সুবিধা হয়েছে । এছাড়াও আমাদের গৃহস্থালীর কাজকর্মেও সুবিধা হয়েছে। এবং প্রতিদিন তেল কেনার টাকাও বেচে যাচ্ছে।

 

এখন কেরোসিন তেলের জন্য বাড়তি কোন টাকা গুনতে হচ্ছে না আমাদের। আমাদের সৌর বিদ্যুৎ দেওয়ার জন্য আমরা ভোলা পাড়া গ্রামবাসী মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মহিলা সংরক্ষিত ৩০১ আসনের এমপি সেলিনা জাহান লিটার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। জানা যায়, ভালা পাড়া গ্রামের মোট ২৮ টি আদিবাসী পরিবারকে সোলার প্যানেল স্থাপন করে দিয়েছেন মহিলা সংরক্ষিত ৩০১ আসনের এমপি সেলিনা জাহান লিটার উদ্যোগে। এবং তিনি নিজে তদারকি করে সোলার প্যালেন স্থাপন করে সম্প্রতি কালে এর উদ্ভোধন করেন।
এ ব্যাপারে সংরক্ষিত-৩০১ আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা জাহান লিটা বলেন, যে সব প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখন প্রর্যন্ত বিদ্যুৎ পৌছেনি আমি চেষ্টা করছি সে-সব এলাকায় সোলার স্থাপন করার। ইতিমধ্যে আমি এরকম একাধিক গ্রামে সোলার প্যানেল দিয়েছি।

আরো খবর »