রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর ফের হামলা, কফি আনানের নিন্দা

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: মিয়ানমারে আবারও পুলিশ ও সেনাক্যাম্পে হামলার ঘটনা ও হতাহতের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে গঠিত কমিশনের প্রধান জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান।

হামলার কিছু পরেই আজ শুক্রবার কফি আনান ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইটে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গত অক্টোবরে মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে ক্যাম্পে হামলার পর সেখানকার রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্যাতনের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের সেপ্টেম্বরে রোহিঙ্গাসহ সব মানুষের কল্যাণের জন্য জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বে নয় সদস্যের এ কমিশন গঠিত হয়।

কমিশন গত বুধবার তাদের প্রতিবেদন দাখিল করে। পরে এক সংবাদ সম্মেলনে কফি আনান দেশটির নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং তাদের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতির আহ্বান জানান। এর একদিনের মাথায় আবারও রাখাইন রাজ্যে হামলা ও হতাহতের খবর জানাল দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে আজকের বিবৃতিতে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান বলেন, ‘এ হামলা নিয়ে আমি খুবই উদ্বিগ্ন এবং এ ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। হামলায় নিরাপত্তাকর্মীদের প্রাণ হারানোর ঘটনায় আমি খুবই মর্মাহত।’

কফি আনান বলেন, ‘এ ধরনের হামলার ঘটনা উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের কোনো কারণ নেই।‘’

‘আমি দৃঢ়ভাবে সব সম্প্রদায় ও দলকে সহিংসতা বর্জন করার আহ্বান জানাচ্ছি। কিছুদিন পর এই নিরাপত্তাহীনতা ও অস্থিতিশীলতা বুঝিয়ে দেবে যে সহিংসতা রাখাইন রাজ্যের সমস্যা মোকাবিলার পথ হতে পারে না’, যোগ করেন কফি আনান।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে মিয়ানমারের রাখাইনে পুলিশ ও সেনাক্যাম্পে হামলায় কমপক্ষে ৩২ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির সেনাপ্রধান। নিহতদের মধ্যে ১১ নিরাপত্তাকর্মী ও ২১ ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী’ রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

শুক্রবার মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে এ তথ্য জানিয়েছেন বলে বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে।

সেনাপ্রধান জানান, রাখাইন রাজ্যে দুর্গম এলাকায় সীমান্ত পোস্টে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ১১ নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে একজন সেনাসদস্য ও ১০ পুলিশ সদস্য রয়েছেন। এ ছাড়া এই হামলায় ২১ ‘সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

সকালে দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে রাখাইন রাজ্যে বৃহস্পতিবার রাতে একসঙ্গে ২৪টি পুলিশ ক্যাম্প ও একটি সেনা আবাসে সন্ত্রাসী হামলার কথা জানানো হয়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার রাতে সন্ত্রাসীরা সংঘবদ্ধভাবে একসঙ্গে রাজ্যের ২৪টি পুলিশ পোস্টে হামলা চালায়। এ হামলায় পাঁচ পুলিশ ও সাত মুসলিম রোহিঙ্গা নিহত হন। এ ছাড়া সন্ত্রাসীরা একটি সেনা আবাসেও হামলার চেষ্টা চালায়।

গত বছরের ৯ অক্টোবর মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকায় দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ক্যাম্পে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। বিচ্ছিন্নতাবাদীরা এ হামলা চালায় বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য মারা যান। অস্ত্র ও গোলাবারুদ লুটের ঘটনা ঘটে। এর পর আবার একই ধরনের হামলার তথ্য দিল মিয়ানমার সরকার।

জাতিগত দ্বন্দ্বের জেরে ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে দেশটির উত্তর-পূর্ব রাখাইন রাজ্যে বসবাসরত মুসলিম রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ওপর সহিংসতা চালাচ্ছে দেশটির সেনাবাহিনী। জাতিগতভাবে নির্মূল করতে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের গ্রামে আগুন দিয়ে বসতবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়াসহ গণহত্যা ও গণধর্ষণ চালায় সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

সহিংসতার শিকার হয়ে গত বছরের অক্টোবর থেকে এক পর্যন্ত ৮৭ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

এর আগে ২০১২ সালের জুনেও মিয়ানমারে সম্প্রদায়িক দাঙ্গায় আক্রান্ত রোহিঙ্গারা দলে দলে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায়। ওই সময় সরকার অনুপ্রবেশ ঠেকাতে শক্ত অবস্থান নেয়। যার ফলে ওই সময়ে সাড়ে পাঁচ হাজার রোহিঙ্গা পুশব্যাক করা হয়।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »