পবিত্র হজ পালনে সেলফি থেকে বিরত থাকুন

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ইসলাম: লোক দেখানো ইবাদত আল্লাহ তাআলার নিকট গ্রহণযোগ্য নয়। বর্তমান সময়েল সেলফি হচ্ছে মানুষের সামনে নিজেকে প্রদর্শনের অনন্য এক মাধ্যম। আর হজ পালন করতে গিয়ে সেলফি তুলে প্রিয়জনসহ অন্যদের সামনে নিজেদেরকে প্রদর্শনও লোক দেখানোর মধ্যে পড়ে।

অনেকেই হয়তো এমন ধারণা থেকে সেলফি তুলে না। কিন্তু হজ পালনকারীদের একটা কথা মনে রাখতে হবে, শয়তান মানুষের প্রকাশ্য দুশমন। দুনিয়াতে মুমিন মুসলমানের জন্য শয়তানের চেয়ে বড় দুশমন আর কেউ নেই।

নিজেকে প্রদর্শনে, প্রচার প্রচারণায় সেলফি নিয়েই মানুষের যত ভাবনা। মহাকাশ গবেষণা থেকে শুরু করে দিনমজুর পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছে এ সেলফির ব্যবহার।

সর্বোপরি যে বিষয়টি নিয়ে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি আলোচিত, সমালোচিত তা হচ্ছে ইসলামের সর্ববৃহৎ ইবাদত হজে পালনেরও সেলফির ব্যবহার।

বাইতুল্লাহর তাওয়াফ চলাকালে সেলফি: হাজরে আসওয়াদ চুম্বন করবে সেখানেও সেলফি। আরাফার ময়দানে অবস্থানেও সেলফি। মিনার কংকর নিক্ষেপেও সেলফি।

অবস্থা এমন যে, মনে হয় পবিত্র নগরী মক্কায় সেলফি প্রতিযোগিতা চলছে। মুসলিম উম্মাহর জন্য সেলফিমুক্ত হজ আদায় করা জরুরি। সেলফিমুক্ত হজ আদায়ের দিকগুলো তুলে ধরা হলো-

বর্তমান পরিস্থিতি: বর্তমানে সেলফির আগ্রাসন হজের ইহরাম বাঁধার স্থান (মিকাত) থেকে শুরু করে বিমানে, ইহরামে, বাইতুল্লাহ তাওয়াফে, ঝমঝমের পানি পানে, সাফা-মারওয়া সাঈতে, আরাফাতের ময়দানে, মিনার কংকর নিক্ষেপে, কুরবানিতে এমনকি মাথামুণ্ডনেও সেলফি তুলে তা ফেসবুক, টুইটারসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশের হিড়িক চলছে। হজের মতো আধ্যাত্মিকতাপূর্ণ একটি ইবাদত কি পরিমাণ সেলফিমুখি হয়েছে। এটা ভাবতেও অবাক লাগে।

অথচ রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মিকাতে পৌঁছা থেকে শুরু করে হজের কার্যক্রমে নিজেকে জাহির, আত্মগরিমা এবং লোক দেখানো থেকে বিরত থাকতে বলেছেন। তাছাড়া তিনি হজের প্রত্যেকটি রোকনে আল্লাহর তাসবিহ, দোয়া, জিকির-আজকার এবং তাঁর নিকট ক্ষমা প্রার্থনার শিক্ষা দিয়েছেন। এ থেকে বুঝা যায় বর্তমান সেলফি তোলা ও ভিডিও করা বিশ্বনবির হাদিসের সম্পূর্ণ পরিপন্থী বিষয়। সুতরাং হজের সময় হাজিদের সেলফি তোলা থেকে বিরত থাকাই আবশ্যক।

হজের আহকাম পালনের অন্তরায় সেলফি: হজ আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত গুরুত্বপূর্ণ ফরজ ইবাদত। যা শুধুমাত্র আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জনে মানুষ পালন করে থাকেন। তাঁর সন্তুষ্টি অর্জনের এ ব্যাকুলতাই হচ্ছে- হজের প্রাণ। লোক দেখানো যে কোনো ধরনে কার্যক্রমই ইবাদাত-বন্দেগির চেতনাকে বিনষ্ট করে দেয়। ইবাদাত-বন্দেগির প্রদর্শন হলো রিয়া। যা ইবাদাত-বন্দেগিকে জ্বালিয়ে ধ্বংস করে দেয়। হাদিসে রিয়াকে শিরকে আসগার বা ছোট শিরক হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। হাদিসের আলোকে এ সেলফিও রিয়ার অন্তর্ভূক্ত।

যারা প্রকৃতই আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে গিয়েছেন। সারা জীবনে একটু একটু সঞ্চয় একত্রিত করে আল্লাহর দিদার লাভে বাইতুল্লায় ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত করে নৈকট্য অর্জনে ব্যস্ত। তাদের জন্য সেলফির কার্যক্রম, ক্যামেরার ফ্ল্যাশ তাদের ইবাদতের অন্তরায়। সেলফির কার্যক্রম মুমিন হৃদয়ের একনিষ্ঠতায় মারাত্মক বিঘ্ন ঘটায়। হজের কার্যাবলী সুসম্পন্ন করতে বাধা হিসেবে কাজ করে। যা বর্জন করা অত্যন্ত জরুরি।

হজে যে জন্য সেলফিমুক্ত থাকবেন: রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজ ও ওমরার উদ্দেশ্যে মিকাতে পৌছে বলতেন- ‘হে আল্লাহ! এ হজে নিজেকে জাহির (প্রকাশ করা) ও অন্যকে শোনানোর চেষ্টার ঊর্ধ্বে রাখ।’

বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজে গিয়ে বলেছিলেন, ‘হে আল্লাহ! আমি এমন একটি হজ পালন করতে চাই, যা কোন দম্ভ প্রকাশ বা লোক দেখানো হবে না।’

সেলফি থেকে সতর্কতার কারণ- যেখানে হজের কোনো রুকন সঠিকভাবে পালনে বিঘ্ন হলে মানুষের ওপর দম তথা কুরবানি আদায় করা ওয়াজিব হয়ে যায়। যা না করলে হজ সম্পন্ন হবে। সেখানে সেলফি তুলে নিজে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া পাশাপাশি অন্যের হজের কার্যক্রমে বিঘ্ন ঘটানোর মাধ্যমে কুরবানি ওয়াজিব করে দেয়া মস্তবড় অপরাধও বটে।

সুতরাং হজের সময় যে কোনো ধরনের ছবি তোলা বা ভিডিও করা থেকে বিরত থাকুন। হজের কার্যক্রম যথাযথভাবে সম্পন্ন করতে একনিষ্ঠভাবে মনোনিবেশ করুন।

পরিশেষে…

ইসলামি চিন্তাবিদগণ অপ্রয়োজনে হজ ও ওমরাহর সময় সেলফি না তুলতে সব হাজিদের প্রতি আহবান জানিয়েছে। তাঁরা সেলফি তোলাকে ‘পর্যটকসুলভ আচরণ’ বলেও সমালোচনা করেছেন। কেননা ইবাদতের সময় সেলফি নিয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠলে হজের কার্যক্রমে একনিষ্ঠতা বিচ্ছিন্ন হয় এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।

হজ ও ওমরার যাত্রীরা পর্যটক নন, তারা হলেন আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে প্রত্যাশী, পুণ্যার্থী। তাই হজের সময় সেলফি না তোলাই হবে হজযাত্রীদের ঈমানি দায়িত্ব।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর হজ পালনকারীদেরকে সঠিকভাবে হজের রোকনগুলো যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »