মুক্তি- দেবশ্রী চক্রবর্তী

Feature Image

অন্ধকার বড় বিবর্ন সে রাত , আমি শুয়েছিলাম আমার ব্যক্তিগত কবরে ।
চার অধ্যায়ের সামান নিয়ে নো এন্ট্রি বোর্ড লাগিয়ে ।
আমার অন্তিম ইচ্ছাকে প্রশ্রয় দিয়ে প্রিয় মানুষটি ছড়িয়ে দিয়েছিল
কয়েকটি গোলাপ ফুল আর রেশমি ওড়না আমার কবরে ।
সে ফিরে গেছিল উল্লাসের মহেফিলে রঙ্গিন বেলুন হাতে নিয়ে ;

তারপর নিরাকার সেই রাতে কাকের বিষ্ঠা থেকে ঝড়ে পড়া
ডালিমের বীজ থেকে অঙ্কুরোদগম হয় কবরের বুকে ।
মৃত, অবহেলিত কবরের বুকে স্পন্দন জাগে ফকিরের
এসরাজে বেজে ওঠা ভৈরবী রাগে ।

অলৌকিক অন্ধকার নিথর লাশের বুক চিড়ে ডালপালা মেলে
রাতারাতি গজিয়ে ওঠে আমার উত্তরাধিকারী ।
কবরখানার দেওয়াল ডিঙিয়ে হলুদ পাখী ডানা ঝাঁপটায়
ডালিমের ডালে , হেমন্তের শেষ বেলায় উড়ন্ত হলুদ পালকে
আমি মুক্তি পাই আমনের হিমেল ঘ্রাণে ।

আরো খবর »