ড্রাগন ফসল বেশি লাভজনক এবং টেকসই

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি, স্বাধীনবাংলা২৪.কম

রাজশাহী থেকে ওবায়দুল ইসলাম রবি: রাজশাহীর স্থানীয় ও বাইরের বাজারে ড্রাগন উৎপাদিত ফর গুলির লাভজনক মূল্য পাওয়াযাচ্ছে বলে বাণিজ্যিক উৎপাদকদের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান হয়। এটি রাজশাহী বাজারেউচ্চতর বাণিজ্যিক ও পুষ্টিগত মূল্যের জন্য কৃষক ও ভোক্তা পর্যায়ে জনপ্রিয়তা অর্জন শুরু করেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএইই) -এর ইন্টিগ্রেটেড কোয়ালিটি হর্টিকালচার ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (আইকিউএইচপিপি) চাষীদের প্রয়োজনিয় প্রশিক্ষণ দিচ্ছে যে কিভাবে তারা তাদের ড্রাগন ফার্মিংকে আরও লাভজনক ও টেকসই করে তুলতে পারে। রাজশাহী, নাটোর, পাবনা ও বগুড়া জেলার মধ্যে ১২৫ টি পল্ট স্থাপন করা হয় এবং জাতীয় চিত্র ১০৫০-এরও বেশি। উচ্চ মূল্যের ফল ৫৫০ থেকে ৬০০টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে রাজধানী ঢাকার বাজারে যা সাধারণের ক্রয় ক্ষমতাঅতিক্রম করে।

কিউএইচএইচপি প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক এসএম কামরুজ্জামান জানান, দেশের বিভিন্ন জেলায় ড্রাগন ফল ক্রমবর্ধমান সম্ভাবনা রয়েছে কারণ এর ভূসংস্থান এবং পরিবেশ চাষের জন্য উপযুক্ত। এবং ৩৫ টি জেলায় ৪৩ টি বাগানের চাষীরা চাষিদের কাছে প্রযুক্তিগত জ্ঞানের সম্প্রসারণ করছে এবং বিক্ষোভের পল্ট গুলি নিয়মিতভাবে তত্ত্বাবধান করছে। ড্রাগন ফলের চাষ অন্যান্য ফসলের চেয়ে সহজ।

খুব শীঘ্রই এটি ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালযয়ের জার্মপন্টসম সেন্টার কর্তৃক বাংলাদেশে আমদানী করা হয়েছিল এবং কয়েকটি জেলায় ফল প্রদভাবে চাষ করা হয়েছিল। গাছপালা চারপাশে নিয়মিত ডাইনামিক ভরক এবং ডলোমাইট প্রদান প্রতি বিকল্প মাস (গাছ প্রতি ১০০ গ্রাম) সঙ্গে বরাবর গুরুত্বপূর্ণ। উদ্ভিদ মাত্র রাতে যা পরাগায়ন প্রক্রিয়া প্রভাবিত করতে পারে।

প্রধান বৈশিষ্ট্য ড্রাগন ফল প্রত্যেকের খাওয়ার জন্য উপযুক্ত। মাংস এবং বীজ ভোজ্য অংশ এবং তারা সম্পূণরুপে খাওয়া হয়। এটি ফাইবার সরবরাহ করে যা পাচক এবং সুস্থ যকৃতের জন্য সহায়ক। ফলের বাকি অংশ কার্বোহাইড্রেট এবং জল অন্তর্ভুক্ত। এই ফলে ৩ গুণ বেশি ভিটামিন সি পাওয়া যায়।

ফল একটি চামড়া আছে যা মাংসের সঙ্গে মাখনের মতো। এটি হালকা মিষ্টি স্বাদ এবং বিশেষ করে ক্যালোরি কম। ড্রাগন ফলের ফ্লেভনোয়েড হৃদরোগ ও উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। এবং অক্সিডেটিভ চাপ এবং ধমনী জাগরণ হ্রাস হিসাবে গবেষণা পাওয়া যায়। ফলে ডায়াবেটিস সঙ্গে যুক্ত জটিলতা প্রতিরোধ চিন্তা করা হয়। উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মাত্রা বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।একটি ফল একটি ব্যক্তির জন্য ভাল মাপসই রাখে। ড্রাগন ফলও পানীয়ে ব্যবহার করা হয়, রস ও ওয়াইন তৈরি করে এবং বিভিন্ন খাবার ও পানীয়ের একটি স্বাদযুক্ত করে। এই ফলে ভিটামিন সি, খনিজ এবং অন্যান্য পুষ্টি অনেক রয়েছে।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »