কালকিনিতে অচেতন করে মাইক্রোবাস চালকের টাকা লুট ২জন গ্রেফতার

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি,স্বাধীনবাংলা২৪.কম

মাদারীপুর থেকে ইকবাল হোসেন: মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ সাহেবরামপুর গ্রামে বিষ জাতীয় দ্রব্য মিশ্রিত খাবার খাইয়ে আক্তারুজ্জামান সিকদার(৫০) নামের এক মাইক্রোবাস চালককে অচেতন করে নগদ ৩০হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি চক্র।

এসময় তার কাছ থেকে কয়েকটি ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষরও নেয়া হয়। খবর পেয়ে কালকিনি থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে এবং ব্যাপারে ভূক্তভোগীর স্ত্রী ইরানি আক্তার বাদী হয়ে ৬জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। আর মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী(পিয়ন) নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়া ও তার ছেলে কায়দে আজমকে গ্রেফতার করেছে।

জানাগেছে, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী(পিয়ন) নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়া তার ২ছেলে সৌদি থেকে আসলে তাদের ঢাকার এয়ারপোর্ট থেকে দেশে আনতে কালকিনি পৌর এলাকার উত্তর কৃষ্ণনগর গ্রামের মাইকোবাস চালক আক্তারুজ্জামান সিকদারকে মাইক্রোসহ ভাড়া করেন। সে’মতে গত ৩০আগষ্ট ভাড়া অনুযায়ী কার্যসম্পন্ন করে মাইক্রোবাস চালক।

কিন্তু সেই প্রবাসিদের ২০হাজার রিয়াল(সৌদি টাকা) হারিয়েছে বলে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে মাইক্রোচালক আক্তারুজ্জামানকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে দক্ষিণ সাহেবরামপুর গ্রামে নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়ার বাড়িতে আটকে রাখা হয়। এবং এসময় তার কাছথেকে নগদ ৩০হাজার টাকা লুটে  নেয় আটককারীরা এবং কয়েকটি ফাঁকা স্টাম্পে জোড়পূর্বক স্বাক্ষর নেয়া হয়। পরে বিষ জাতীয় দ্রব্য মিশ্রিত খাবার খাইয়ে অচেতন করে রাস্তার পাশে ফেলে রাখলে খবর পেয়ে কালকিনি থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছে।

এঘটনায় ভূক্তভোগী মাইক্রোবাস চালক আক্তারুজ্জামানের স্ত্রী ইরানি আক্তার বাদী হয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী(পিয়ন) নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়া, তার ২ছেলে কায়দে আজম ও কদম আলী, ঘটনার সাহায্যকারী শামিম রাঢ়ি, সামাদ হাওলাদার ও শাকিলের নামে একটি মামলা দায়ের করেছে।

উল্লেখ্য উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী(পিয়ন) নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে একই গ্রামের আলী চৌকিদার ও মাওলানা হাসানুজ্জামান সহ কয়েকজন গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় আরো ৩টি মামলা চলমান রয়েছে।

এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালকিনি থানার এসআই জসিম উদ্দিন বলেন ‘ মাইক্রোবাস চালক আক্তারুজ্জামানকে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং এঘটনায় ২জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামীদের গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »