গর্ভে কন্যা সন্তান ধারণ করায় গৃহবধূকে মারপিট

Feature Image

জেলা প্রতিনিধি,স্বাধীনবাংলা২৪.কম

গোপালগঞ্জ থেকে এস এম সাব্বির: গোপালগঞ্জে গর্ভে কন্যা সন্তান ধারন করায় শামীমা বেগম (২২)নামে ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে মারপিট করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার কাশিয়ানী উপজেলার ভুতপাশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। আহত ওই গৃহবধূ কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

জানাগেছে, ৪ বছর আগে কাশিয়ানী উপজেলার ভুতপাশা গ্রামের সালাম শেখের ছেলে উজ্জ্বল শেখ একই উপজেলার ভাটিয়া পাড়া গ্রামের আলমগীর বিশ্বাসের মেয়ে শামীমাকে বিয়ে করেন। উজ্জ্বল শেখ ময়মনসিংহের বাদশা টেক্সটাইল মিলে চাকুরী করেন। এ দম্পতির আনিকা (৩)নামের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

গৃহবধূ শমীমা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ৮ মাস আগে আমি অন্তঃসত্বা হই। গত ২৬ আগষ্ট কাশিয়ানী উপজেলা সদরের নিরাময় ক্লিনিক থেকে আলট্রাসনোগ্রাম করা হয়। আলট্রাসনোগ্রামে বলা হয় গর্ভের সন্তান কন্যা। এটা জানতে পেরেই আমার স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়। এরপর থেকে গর্ভপাত করার জন্য আমাকে চাপ দিতে থাকে। স্বামী আমাকে টাকা পয়সা, চিকিৎসা দেয়াসহ সব ধরনের সহযোগীতা ও যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। স্বামী ছুটিতে বাড়ি ফিরে বৃহস্পতিবার সকালে আমাকে গর্ভপাতের জন্য ক্লিনিকে নিয়ে যেতে চায়। আমি যেতে অস্বীকার করলে আমার স্বামী, শশুর সালম শেখ ও শাশুড়ি নিলুফা বেগম আমাকে বেধড়ক মারপিঠ করে। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে কাশিয়ানী হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ব্যাপারে স্বামী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করবেন বলে ওই গৃহবধূ জানিয়েছেন।

অভিযুক্ত স্বামী উজ্জ্বল শেখের মোবাইলে ফোনে বার বার  ফোন দেয়া হয়। রিং হলেও ফোন তিনি রিসিভ করেননি। এ কারণে তার বক্তব্য পাওয়া যায় নি।

কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. নুরুল আফসার বলেন, ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই গৃহবধূ হাসাপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তকে মারপিট করা হয়েছে। তার শরীরে মারপিটের চিহ্ন রয়েছে।  ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা থাকায় ওই মহিলা বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে।

কাশিয়ানী থানার ওসি এ.কে.এম আলী নূর হোসেন বলেন, আমি শামীমা বেগমকে চিনিনা। এ ব্যাপারে আমাদের কাছে এখনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলেই আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »