লালমনিরহটে শুরু হয়েছে দুর্গোৎসবের ব্যপক প্রস্তুতি

Feature Image

লালমনিরহাট থেকে জিন্নাতুল ইসলাম জিন্নাঃ  আর মাত্র কয়েকদিন, তারপরেই শুরু হচ্ছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। দুর্গোৎসব উদযাপনে বন্যা কবলিত লালমনিরহাট জেলার ৫ উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের মাঝে দেখা দিয়েছে কর্ম ব্যস্ততা। শত দুভোর্গের মাঝেও জেলায় ৪ শত ২৯ টি মন্ডপের মধ্যে ৪শত ১১টি মন্ডপে চলছে দুর্গোৎসবের ব্যাপক প্রস্তুতি। বাকী ১৮টি মন্ডপে মন্দিরের জমি জবর দখলের প্রতিবাদে ও জমি ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে সদর উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নে দুর্গা উৎসব পালন না করার ঘোষনা দিয়েছে ইউনিয়ন পুজা উদযাপন কমিটি।

গত বছরের চেয়ে ১২টি বেশি মন্ডপে এবার পুজা উদযাপন হবে। এখন পূজা মন্ডপ গুলোতে শুরু হয়েছে প্রতিমার গায়ে আঁচড়ের কাজ। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ দিনব্যাপী মাঙ্গলিক আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হবে দুর্গোৎসব। নানা পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমেছে পূজা আয়োজকরা। এখন শুধু অপেক্ষা সেই মাহেন্দ্রক্ষণের। সময় কম থাকায় রাতদিন প্রতিমা শিল্পীরা প্রতিমার সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছেন।
লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের আমবাড়ি গ্রামের প্রতিমা কারিগর গোপাল পাল জানান, তিনি দুর্গোৎসবের ৪ মাস আগ থেকে ৩৭ টি প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন। কিন্তু বৃষ্টির কারণে তার কাজে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। ফলে প্রতিমা তৈরির ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে। তারপরও বাড়তি শ্রমিক নিয়ে সময় মত প্রতিমা তৈরী কাজ শেষ করবেন বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের লালমনিরহাট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক গোপাল চন্দ্র বর্মন জানান, লালমনিরহাট জেলার সদর উপজেলায় ১ শত ৪৪টি, আদিতমারী উপজেলায় ১ শত ৬টি, কালীগঞ্জ উপজেলায় ৮২টি, হাতীবান্ধা উপজেলায় ৭১টি ও পাটগ্রাম উপজেলায় ২৬টিসহ জেলায় মোট ৪ শত ২৯ টি মন্ডপে দুর্গোৎসব উদযাপনের প্রস্তুতি চলছে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ জানান, জেলায় শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপনে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। পাশাপাশি পূজা মন্ডপ গুলোতে নিরাপত্তাও জোরদার করা হবে।

আরো খবর »