খালেদার নতুন বার্তার অপেক্ষায় নেতাকর্মীরা

Feature Image

স্বাধীনবাংলা২৪.কম

ঢাকা: চিকিৎসা শেষ হলেই দেশে ফিরবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। চিকিৎসা শেষ না হওয়ায় তাই কবে ফিরবেন, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। আগামীকাল সোমবার আবার চেকআপের জন্য সময় নির্ধারণ করা আছে। চেকআপ শেষে চিকিৎসকের সিদ্ধান্তের পরই বলা সম্ভব হতে পারে কবে নাগাদ দেশে ফিরবেন তিনি। তার আগে কিছুই বলা সম্ভব নয়। চেয়ারপারসনের ঘনিষ্ঠ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

চোখ ও পায়ের চিকিৎসার জন্য ১৫ জুলাই লন্ডনে যান খালেদা জিয়া। দুই মাস ধরে লন্ডনে ছেলে তারেক রহমানের বাসায় অবস্থান করছেন তিনি।

এদিকে দলের একটি অংশ চাচ্ছে, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় দ্রুতই চেয়ারপারসন দেশে ফিরে আসুক। তার অনুপস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে মনে করছেন তারা। তবে অপর একটি অংশ বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তাদের মতে, রোহিঙ্গা সংকটের কারণে চেয়ারপারসনের দেশে ফিরে আসার প্রয়োজন নেই। দলের করণীয় ব্যাপারে চেয়ারপারসনের পরামর্শ নেয়া হচ্ছে। তার সঙ্গে আলোচনা করেই সব সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, ১৫ সেপ্টেম্বর চেয়ারপারসনের দেশে ফেরার ব্যাপারে টিকিট বুকিং দেয়া ছিল। কিন্তু চিকিৎসা শেষ না হওয়ার কারণে তার দেশে ফেরা সম্ভব হয়নি। চিকিৎসা কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর পরই তিনি দেশে ফিরে আসবেন। চোখের পর এখন তার পায়ের চিকিৎসা চলছে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, চেয়ারপারসনের চিকিৎসা এখনও শেষ হয়নি। সোমবার (আগামীকাল) ডাক্তারের সিউিউল রয়েছে। ওইদিন তার শারীরিক চেকআপ শেষে চিকিৎসকের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করবে দেশে ফেরার বিষয়টি। তিনি চিকিৎসার জন্য লন্ডন গিয়েছেন, চিকিৎসা শেষ করেই দেশে ফিরবেন।

সূত্র জানায়, দেশে ফিরেই আগামী নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন। এছাড়া নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সহায়ক সরকারের রূপরেখা ঘোষণাসহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেবেন খালেদা জিয়া। দেশে ফিরে তৃণমূল চাঙ্গা করতে দ্রুতই বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করবেন। দলের সাংগঠনিক পুনর্গঠনেও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত আসতে পারে। এদিকে চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে দলের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে কোনো কর্মকাণ্ডেই দেখা যাচ্ছে না।

অভিযোগ রয়েছে, খালেদা জিয়া লন্ডন যাওয়ার পর থেকে এসব নেতার সঙ্গে দলের কোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে আলোচনা করা হয় না। এ বিষয়টি লন্ডনে খালেদা জিয়াকেও জানানো হয়েছে। এসব নানা কারণে দলের নেতাকর্মীরা খালেদা জিয়ার দেশে ফেরার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন।

তবে বিএনপির কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, দেশে ফেরার আগে ভারতের ক্ষমতাসীন দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এ নিয়ে কাজ করছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সংশ্লিষ্টরা। এ বৈঠকটি চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে হতে পারে। এ বৈঠকে বিএনপির সঙ্গে ভারতের আস্থার সম্পর্ক স্থাপন ও বাংলাদেশের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

লন্ডন বিএনপির একটি সূত্র জানায়, দেশে ফেরার আগে লন্ডনে প্রবাসী নেতাকর্মীদের নিয়ে একটি বড় পরিসরে সভা করতে পারেন খালেদা জিয়া। এ নিয়ে সার্বিক প্রস্তুতি নিচ্ছে যুক্তরাজ্য শাখা বিএনপি। যুক্তরাজ্য শাখা বিএনপির সভাপতি আবদুল মালেক জানান, খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে লন্ডনপ্রবাসী দলের নেতাকর্মীরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। আমরা প্রত্যাশা করছি, তিনি সুস্থ হয়ে উঠলে তার অনুমতি নিয়ে যথাসম্ভব দ্রুত সময়ে একটি দলীয় অনুষ্ঠান করব।

স্বাধীনবাংলা২৪.কম/এমআর

আরো খবর »