জোটের প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারনায় টিম করবে ১৪ দল

Feature Image

ঢাকা  : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জোটের প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারনার লক্ষে টিম করবে কেন্দ্রীয় ১৪ দল।

শনিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দলের এক বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখাপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।
তিনি বলেন, ‘জোটের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারনার জন্য আমরা ১৪ দল থেকে টিম করবো। সারাদেশের বিভিন্ন আসন গুলোতে গিয়ে সভা, সমাবেশের মাধ্যমে জোটরে প্রার্থীর পক্ষে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচার প্রচরনা করবো। নির্বাচনের আগে সারাদেশের যতগুলো আসনে সম্ভব আমাদের এই টিম প্রচার-প্রচারনা চালাবে।’

আগামী বিজয় দিবস (১৬ ডিসেম্বর) থেকে সারাদেশের সকল জেলা উপজেলায় বিজয় মঞ্চ করা হবে জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, এই সকল বিজয় মঞ্চ থেকে মুক্তিযুদ্ধ সময়কার গান, মুক্তিযুদ্ধের উপর নির্মিত বিভিন্ন নাটকসহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রচার করা হবে।
বিজয়ের মাস এলেই বিএনপি-জামায়ত জোট ভায় পায় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলী সদস্য বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন পেছানোর দাবী জানিয়েছে। তারা বিজয়ের মাস ডিসেম্বররে নির্বাচন চায় না। কারণ তারা বিজয়ের মাস ডিসেম্বর এলেই ভয় পায়। তাদের মনে হয়ে যায় ৭১এর পরাজয়ের কথা।’

বিএনপির চরিত্র এখনও পরিবর্তন হয়নি উল্লেখ করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, পল্টনে তাদের দলীয় কার্যালয়ের সামনে যে ভাবে পুলিশের উপর হামলা করা হয়েছে তা অত্যন্ত দু:খ জনক। বিএনপির চরিত্র এখনও বদলায়নি। এই হামলা পূর্ব পরিকল্পিত ছিল। তারা আগে থেকেই লাঠি নিয়ে হামলার জন্য প্রস্তুত ছিল। তারপরও তারা এই ঘটনা নিয়ে মিথ্যাচার করে যাচ্ছে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সকল রাজনৈতিক দল অংশ গ্রহণ করায় তাদের স্বাগত জানিয়ে হাসানুল হক ইনু বলেন, যুদ্ধপরাধীদের বিষয়ে মুখবন্ধের নীতিকে নিন্দা জানাচ্ছি। অপরাধীদের পক্ষে ওকালতি করবেন বা হালাল করার চেষ্টা করবেন না। মীমাংসিত কোন বিষয় নিয়ে বিভ্রান্ত ছড়াবেন না। বাংলাদেশকে আর হত্যাকারি-আগুন সন্ত্রাসীদের হাতে যেতে যাওয়া যাবে না।

এর আগে গণআজাদী লীগের সভাপতি এসকে শিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় জাতীয় সমাজ তান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়া, জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন এখতার এমপি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দি, জাতীয় পার্টি জেপির সাধারণ সম্পাদক শেখ সহিদুল ইসরাম, উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ রায় প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরো খবর »