মাংস আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের ৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ

Feature Image

রাজধানীর পল্টনে এসআরপি ট্রেডিং নামে একটি হিমায়িত মাংস আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তার অভিনব প্রতারণার খবর পাওয়া গেছে। নানা কৌশলে প্রতিষ্ঠানটির সহকারী ম্যানেজার ফারুক হোসাইন ৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরই মধ্যে কোম্পানির পক্ষ থেকে দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করেছে পল্টন থানা পুলিশ। প্রতারকের খপ্পরে পড়ে অস্তিত্ব হারাতে বসেছে কোম্পানিটি। অনিশ্চিয়তায় পড়েছেন সংশ্লিষ্ট মালিক ও কর্মীরা।

এসআরপি ট্রেডিংয়ের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার কাজী নাজমুল হাসান জানান, ২০১৮ সাল থেকে তাদের প্রতিষ্ঠানে সহকারী ব্যবস্থাপক (বিক্রয় ও বিপনন) হিসেবে কর্মরত ছিলেন লক্ষীপুরের টুমচরের কালিরচর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে ফারুক হোসাইন (২৭)। তবে চলতি বছরের শুরুতে তার অনিয়ম-দুর্নীতির কিছু তথ্য সামনে আসতে থাকে। কোম্পানির মালিক অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী শরিফুল হাসান। হিমায়িত মাংস বিদেশ থেকে এনে কোল্ড স্টোরেজে রেখে বিক্রি করে আসছিল এই প্রতিষ্ঠান। এলসির মাধ্যমে আমদানিকৃত মাংস প্রতিষ্ঠানের ভাড়াকৃত হিমাগারে সংরক্ষণ করে তার নিজ দায়িত্বে বাজারে বিক্রি, বিক্রির মাংস ও মাংস বিক্রয়লব্ধ অর্থের হিসাব প্রতিনিয়ত প্রতিষ্ঠানের নিকট প্রদান করা ছিল তার কাজ। কিন্তু এক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ জানতে পারে যে, হিমাগারে যে পরিমাণ মাংস আছে বলে প্রতারক ফারুক হুসাইন প্রতিষ্ঠানকে জানাচ্ছে, প্রকৃতপক্ষে তা সঠিক নয়। পরে জানা যায়, সুনামধন্য এ কোম্পানির ৬ কোটির অধিক টাকা আত্মসাৎ এবং আমদানি করা ফ্রোজেন মাংশ চুরি ও তা বিক্রয় করে আর্থিক দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করে নামে বেনামে ফ্লাট এবং বিভিন্ন ব্যাংকে কোটি কোটি টাকা জমা করেছেন ফারুক।

বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য হিমাগারে সংরক্ষিত বর্তমান মাংসের পরিমাণ জানানোর জন্য ফারুককে বললে, সে গত ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে ওয়াটস এ্যাপ ম্যাসেজে প্রতিষ্ঠানকে জানায়, যে ৬ ফেব্রুয়ারি হিমাগারে ১৫৯ দশমিক ২১০ টন মাংস আছে, যার বাজার মূল্য আনুমানিক ৫ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। প্রতারক ফারুকের দেয়া তথ্য সঠিক নয় জেনে সেদিনই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে একটি অডিট কমিটি গঠন করে প্রতিষ্ঠানের ভাড়াকৃত হিমাগারে পাঠানো হয়।

উক্ত অডিট প্রতিবেদনে জানা যায়, প্রতিষ্ঠানের ভাড়াকৃত হিমাগারে উল্লেখিত মাংস সংরক্ষিত নেই। প্রতারক ফারুক প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন ছাড়াই দীর্ঘ দিন ধরে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ভুয়া বিল ভাউচারের মাধ্যমে মাংস বিক্রি দেখিয়ে ৭৫ লাখ টাকা সহ সর্বমোট প্রায় ৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবে জমা প্রদান না করে সে তা চুরি করে।

নাজমুল হাসান আরও জানান, কোম্পানির সঙ্গে এমন ভয়াবহ জালিয়াতির বিষয় ধরা পড়ার পর গত ৮ ফেব্রুয়ারি ফারুকে শোকজ করা হয়। এরপর তাকে কোম্পানি থেকে বরখাস্ত করা হয়। কোম্পানির সঙ্গে ফারুকের সমঝোতা হয় যে, জালিয়াতির মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া অর্থ তিনি ফেরত দেবেন। এরই মধ্যে ফারুক একটি ফ্ল্যাট কেনেন। ওই ফ্ল্যাটসহ সব মিলিয়ে দেড় কোটি টাকার মতো পরিশোধ করেন ফারুক। গত ২১ ফেব্রুয়ারি ফারুকের স্ত্রী এসআরপি ট্রেডিংয়ের এক কর্মকর্তাকে ফোন করে জানান, তার স্বামীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে। তখন কোম্পানির লোকজন কিছুটা দ্বিধায় পড়ে যান। তাকে পাওয়া না গেলে কোম্পানির বাকি টাকা পাওয়া নিয়ে সংশয় বাড়ে। নিজেকে গা-ঢাকা দিয়ে কোম্পানির লোকজনকে ফাঁসাতে পারেন এমন সংশয়ও ছিল।

এরপর এসআরপি ট্রেডিংয়ের লোকজন বিষয়টি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করেন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অভিযোগ গেছে- এটা জানার পর আবার ফারুক প্রকাশ্যে এসে কোম্পানিকে বাকি টাকা পরিশোধের আশ্বাস দেন। ফেব্রুয়ারি থেকে ১৬ মার্চ পর্যন্ত কয়েক দফায় কিছু টাকা পরিশোধ করলেও ৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকা বাকি রেখে মোবাইল বন্ধ রেখে পরে পালিয়ে যান ফারুক।

জানা গেছে, এসআরপির অর্থ কোম্পানির হিসাব নম্বরে না এনে নিজের একাউন্টে নিয়েছেন তিনি। অন্তত ২০টি ব্যাংকে তার নামে-বেনামে হিসাব নম্বর রয়েছে। এর আগে ফারুক আর কে ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের ম্যানেজার ছিলেন। ওই কোম্পানি থেকেও ১২ লাখ ১৫ হাজার ৩৪৮ টাকা চুরির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

পল্টন থানার ওসি মো. সেন্টু মিয়া জানান, টাকা আত্মসাতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ফারুককে গত ১৩ জুলাই গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছে। মামলাটির তদন্ত চলছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ফারুকের স্ত্রীর মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। স্ত্রীও ফারুকের প্রতারণার সহযোগী বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে প্রতারক ফারুকের খপ্পরে পড়ে কোম্পানিটির অনেক কর্মচারি চাকরি হারানোর পাশাপাশি এবং কোম্পানিটি তার অস্তিত্ব হারাতে চলছে। এ অবস্থা থেকে রক্ষায় প্রতারকের শাস্তি ও আত্মসাতের টাকা উদ্ধারের ব্যবস্থা করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরো খবর »