রাজনীতি নিষিদ্ধ করা বুয়েটে ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা

Feature Image

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) কমিটি ঘোষণা করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। অথচ আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে এই ক্যাম্পাসে সব ধরনের রাজনৈতিক কার্যক্রম নিষিদ্ধ করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। যদিও অন্য সব ছাত্র সংগঠন বুয়েট প্রশাসনের ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা না করে তাদের রাজনৈতিক কার্যক্রম তখনই তোলে নিয়েছিল।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) রাতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বুয়েট ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে আসিফ হোসেন রচিকে আহ্বায়ক এবং আলী আহমদকে সদস্য সচিব করা হয়। কমিটির মোট সদস্য ৫ জন।

ছাত্রদলের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, নব-নির্বাচিত নেতৃবৃন্দকে আগামী এক মাসের মধ্যে ইউনিটের পূর্ণাঙ্গ তালিকা করে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের কাছে জমা দিতে হবে।

বুয়েটে কমিটি দে‌ওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা এই কমিটি দিয়েছি। এ ধারা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

একই সঙ্গে ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট), ইডেন মহিলা কলেজ এবং স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজের আহ্বায়ক কমিটি (আংশিক) গঠন করেছে বিএনপির এই ছাত্রসংগঠন।

উল্লেখ্য, আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে গত বছরের ১১ অক্টোবর বুয়েটের ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম বুয়েটে ছাত্র-শিক্ষক রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘আমার নিজ ক্ষমতায় বুয়েটের সব রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনের কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ ঘোষণা করছি। এখন থেকে ছাত্ররাজনীতির সঙ্গে কেউ জড়িত থাকলে ডিসিপ্লিনারি বোর্ডের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

উল্লেখ্য, ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেওয়ার জের ধরে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে গত বছরের ৬ অক্টোবর রাতে ডেকে নিয়ে যায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। সেখানে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর রাত ৩টার দিকে শেরেবাংলা হলের নিচতলা ও দুইতলার সিঁড়ির করিডোর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

৭ অক্টোবর দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে আবরারের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

আরো খবর »