মাস্ক ছাড়া কক্সবাজার সৈকতে বেড়ানো যাবে না

Feature Image

পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর কক্সবাজার সৈকত আজ সোমবার থেকে খুলে দেওয়া হয়েছে। তবে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে মাস্ক ছাড়া সৈকতে বেড়ানো যাবে না এবং কেউ যদি মাস্ক না পরে তাহলে তাকে জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাভেদ আহমেদ জানান, পর্যটক এবং যারা পর্যটকদের নানা ধরনের সেবা প্রদান করবেন তাদের জন্য কি করণীয় সে বিষয়ে একটি নির্দেশাবলী তৈরি করা হয়েছে। যা বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে।

ওয়েব সাইটে দেখা যায় সেখানে মোট ১৩টি অধ্যায় রয়েছে। ট্যুর অপারেটর, ট্র্যাভেল এজেন্ট, হোটেল, রেস্তোঁরা, এয়ারলাইন্স, টুরিস্ট কোচসহ পর্যটনের সাথে জড়িত এরকম নানা পক্ষের জন্য আলাদা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

যেমন, কভিড-১৯ মহামারি শুরুর পর থেকে যেসব স্বাস্থ্যবিধি রয়েছে তাছাড়াও পর্যটকদের ভ্রমণে যাওয়ার আগে অনলাইনে বুকিং ও অর্থ পরিশোধ করতে বলা হচ্ছে। বড় দলে ভ্রমণের পরিবর্তে কম সদস্য ও পারিবারিক ভ্রমণকে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

সেবা গ্রহণের পূর্বে হোটেল, রেস্তোঁরা, স্থানীয় পরিবহণ, গাইড, স্যুভেনির শপ ইত্যাদির কভিড-১৯ বিষয়ে নিরাপত্তা বিধানের সক্ষমতা রয়েছে কিনা তা যাচাই করে বুকিং দেয়া, হোটেলে অবস্থানকালে বহিরাগত কারোর প্রবেশ নিরুৎসাহিত করা এরকম নানা নির্দেশনা ও পরামর্শ রয়েছে।

পর্যটকদের ব্যবহৃত স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী সঠিকভাবে ফেলা, রেস্তোরাতে পরিবেশন করা বুফে খাবার পরিহার করে বরং তিন ফুট দূরত্বে খাবার টেবিলে বসা ইত্যাদি নানা বিষয় উৎসাহিত করা হয়েছে।

জাভেদ আহমেদ বলেন, কেউ যদি মাস্ক না পরে কোথাও যান তাহলে তাকে জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে। মোবাইল কোর্ট, টুরিস্ট পুলিশ এবং জেলার প্রশাসন একসাথে এবিষয়টিতে কাজ করবে।

টুরিস্ট পুলিশের কক্সবাজার জেলার এসপি মো: জিল্লুর রহমান জানিয়েছেন, প্রথম দিন আবহাওয়া ভালো নয় অর্থাৎ তিন নম্বর সতর্ক সংকেত রয়েছে। এই কারণে সৈকতে মানুষজন তেমন একটা ছিল না।

তিনি জানিয়েছেন সৈকতের যে অংশগুলো সবচেয়ে জনপ্রিয় যেমন কলাতলি বিচ, লাবনি পয়েন্ট, ইনানি বিচ, হিমছড়ি এসব জায়গায় নামার পথে টুরিস্ট পুলিশ অবস্থান করবে এবং কেউ যদি মাস্ক না পরেন তাহলে তাকে সৈকতে নামতে দেয়া হবে না।

তবে কারো কাছে মাস্ক না থাকলে দরকারে তাকে তা সরবরাহ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরো খবর »