অপুকে নতুন ছবি থেকে যে কারণে বাদ দেয়া হয়েছে

Feature Image

দীর্ঘদিন পর নতুন ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার খবর দেন অপু বিশ্বাস। সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ‘আশীর্বাদ’ ছবিটিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর সবার কাছে আশীর্বাদও চান এ নায়িকা। তবে চুক্তি সম্পাদনের দুই দিনের মাথায় এসে অপু বিশ্বাস জানান ছবিটি থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তিনি।

গণমাধ্যমে অপু বিশ্বাসের সরে দাঁড়ানের খবর প্রকাশিত হলে বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেন ছবিটির প্রযোজক জেনিফার ফেরদৌস। তিনি বলেন, ‘অপু বিশ্বাস সরে যায়নি। তাকে আমরাই বাদ দিয়েছি।’

প্রযোজক জেনিফার এক ভিডিও বার্তায় বলেন, চুক্তি স্বাক্ষরের দিন অপু বিশ্বাস একজন ফটোগ্রাফার নিয়ে আসেন। সেই ফটোগ্রাফারের ধারণ করা চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের স্থিরচিত্র ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করে দেন অপু, যা প্রযোজকের পক্ষ থেকে পুরোপুরি নিষেধ ছিল। এরপর তা সরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ করেন। কিন্তু বারবার বলার পরও সরাননি। বিষয়টি নিয়ে তার ও নায়িকার মধ্যে কথা–কাটাকাটি হয়। প্রযোজকের ভাষায় আলটিমেটামও দেন নায়িকাকে। এরপর পরিচালকসহ সিদ্ধান্ত নিয়ে অপু বিশ্বাসকে ছবি থেকে বাদ দেন।

প্রযোজক জেনিফারের এমন কথার জের ধরে অপু বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু অপু বিশ্বাস ফোন ধরেন নি। টেক্স পাঠালেও কোন উত্তর আসেনি।

সরকারি অনুদানের এই ‘আর্শীবাদ’ পরিচালনা করার কথা রয়েছে মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের। এর আগে ‘জান্নাত’ ছবির মাধ্যমে জাতিয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

প্রযোজক সূত্রে জানা গেছে মঙ্গলবার সকালে ‘আশীর্বাদ’ ছবির সাইনিং মানি হিসেবে অপু বিশ্বাসকে দেয়া হয়েছিলো ১ লাখ টাকা। সে টাকাও অপু ফেরত দিয়েছেন।

২০১৯–২০ অর্থবছরে সরকারি অনুদানে পূর্ণদৈর্ঘ্য ক্যাটাগরিতে ১৬টি চলচ্চিত্রকে অনুদান দেওয়া হয়েছে। এগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে ‘আশীর্বাদ’। অপু বিশ্বাসকে বাদ দেয়ার পর ইতোমধ্যে ছবিটির নতুন নায়িকাও ঠিক করা হয়েছে বলে জানান প্রযোজক জেনিফার। যা শিগগিরই জানানো হবে।

আরো খবর »