জার্সি বেচেই ২০০ মিলিয়ন তুলবে সিটি

Feature Image

লিওনেল মেসিকে কেনার লড়াই থেকে সরে এসেছে পিএসজি। চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী বায়ার্ন মিউনিখ বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন তারকাকে কেনার কথা ভাবছেই না। কারণ মেসির বেতন। তাকে কেনা তো দূরে থাক, ফ্রি এজেন্টে পেলেও বেতন দিয়ে পোষার মতো ক্লাব ইউরোপে দুই-তিনটির বেশি নেই। মেসি বার্সেলোনা ছাড়লে করোনাকালীন আর্থিক সংকটে পড়া বার্সার মোটা অর্থই সাশ্রয় হবে।

স্প্যানিশ সংবাম মাধ্যম মার্কার খবর, মেসি চলে গেলে কেবল তার বেতন, বোনাস ও ভাতাবাবদই বছরে ১২০ মিলিয়ন ইউরো অর্থ সাশ্রয় হবে বার্সার। ট্রান্সফার ফি থেকেও বড় অর্থ আয়ের সুযোগ আছে। তার রিলিজ ক্লজ ধরা আছে ৭০০ মিলিয়ন ইউরো। মেসি চান ফ্রি এজেন্ট হিসেবে যেতে। কিন্তু আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত বার্সেলোনা তাকে ফ্রিতে ছাড়বে বলে মনেও হয় না। ফ্রি এজেন্ট হিসেবে ছাড়লেও অবশ্য রিলিজ ক্লজ ক্যাটাগরিতে অর্থ আদায়ের সুযোগ আছে কাতালান ক্লাবটির।

এছাড়া সংবাদ মাধ্যম গোলের খবর অনুযায়ী, এরই মধ্যে ম্যানসিটি মেসির বদলে তিনজন ফুটবলারকে প্রস্তাব করেছে। তার মধ্যে দু’জনে বার্সার আলাদা নজর ছিল। একজন হলেন পর্তুগাল মিডফিল্ডার বেনার্ড সিলভা। অন্যজন ব্রাজিলের স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুস। লুইস সুয়ারেজের জায়গায় তাকে মনে ধরেছে রোনাল্ড কোম্যানের। এছাড়া আর্জেন্টাইন গার্সিয়াকে দিতে চায় সিটি।

মেসিকে বেতন দেওয়ার সামর্থ্য অবশ্য ভালো মতোই আছে ম্যানসিটির। মানি ইজ নো প্রবলেম- সিটির সঙ্গে অন্তত এই কথাটা যায়। সাবেক ডিফেন্ডার ড্যানি মাইলসও সে কথা মনে করিয়ে দিলেন। মেসিকে আনতে অর্থ নিয়ে খুব একটা ভাবতে হবে না সিটিজেনদের। কারণ জার্সি বেচলেই নাকি ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড উঠে যাবে তাদের। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এই ডিফেন্ডার বলেন, ‘আমি মনে করি না অর্থ এখন সিটির জন্য বড় কোনো ইস্যু। যদি জার্সি বিক্রি করা হয় তাহলে ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড তোলা যাবে।’

স্প্যানিশ মাধ্যমগুলোর খবর, নিজের পেশাদারিত্বের খাতিরে আগামী কয়েকটা দিন বার্সার অনুশীলনে নামলেও এর মাঝে চুক্তির বাকি কাজটা সেরে ফেলবেন মেসি। সেজন্য ফিফাকেও জানিয়ে রেখেছেন, যাতে কোনো ঝামেলা ছাড়াই তাকে যেতে দেওয়া হয়।

আরো খবর »