স্ত্রীর অধিকার আদায়ে এসে লাঞ্ছিত এক নারী

Feature Image

লিপু খন্দকার ঃ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে স্ত্রীর অধিকার আদায়ের জন্য বার বার স্বামীর বাড়িতে গিয়ে লাঞ্ছিত হচ্ছেন মধ্যবয়সী এক নারী। গতকাল স্বামীর বাড়িতে অবস্থানকালে শশুড়, শাশুড়ী, ননদ ও ভাসুরের দ্বারা লাঞ্ছিত হওয়া ছাড়াও মোবাইল ফোন ও নগদ অর্থ কেড়ে নেবার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ভুক্তভোগী ঐ নারী জানান, কুমারখালী শিলাইদহ ইউনিয়নের লিয়াকত আলীর ছেলে আবু মুসা পাংশা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে পড়াকালীন চলতি বছরের আগষ্ট মাসে তাদের রাজবাড়ী কোর্টে বিয়ে হয়। বিয়ে হবার পর তার সঞ্চিত সমস্ত অর্থ কৌশলে মুসা নিয়ে নেয়। বিয়ের ছয়মাস পূর্বে তাকে দিয়ে তার পূর্বের স্বামীকে তালাক দেয়ায় মুসা। তার ৪ টি বাচ্চা রয়েছে। সব জেনে মুসা তাকে বিয়ে করে। এদিকে গত অক্টোবর মাসে তিনি মুসার বাড়িতে আসলে তার শাশুড়ী তাকে আপ্যায়ন করে এবং মুসার বোনের বিয়ের পর বাড়িতে তুলে নেবার কথা বলে। তিনি আরো জানান মুসাদের বাড়ি থেকে ফেরার পথে জানতে পারেন কয়েকদিন আগে সে দ্বিতীয় বিয়ে করেছে। বিষয়টি জানার পর থেকে মুসা বা তার পরিবারের কেউ তার সাথে যোগাযোগ রাখছেনা এবং বাড়িতে আসলে তাকে লাঞ্ছিত করে তাড়িয়ে দিচ্ছে। বর্তমানে তার পূর্বের স্বামী সন্তানের কাছে বা তার বাবার বাড়িতেও যেতে পারছেননা। যেকারণে তিনি কুমারখালীতে রয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার ক্ষুধার তাড়নায় তার ব্যবহৃত স্বর্ণের চেইন কল্যাণপুর মসজিদের পাশে স্বর্ণের দোকানী আনারুলের কাছে এগার হাজার তিনশত টাকায় বিক্রি করে আবারও তার স্বামী মুসার বাড়িতে যায়। এসময় মুসার পিতা লিয়াকত আলী, মা হামিদা খাতুন, বড় ভাই ইউসুফ ও বোন রিক্তা তাকে মারধর করে কাছে থাকা টাকা ও দুইটি মোবাইল ফোন ব্যাগসহ কেড়ে নেয়। পরবর্তীতে সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে পৌঁছালে ব্যাগ ও একটি মোবাইল ফোন ফেরত দিলেও এন্ড্রয়েড ফোন ও টাকা ব্যাগের মধ্যে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে মুসার বাড়ির পাশের জনিরুদ্দিন জানান, মহিলাকে বাড়ির সকলে মিলে মারধর করেছে। গায়ে এখনো ধুলা লেগেই আছে।

স্বর্ণের দোকানী আনারুল জানান, মহিলা গতকাল তার দোকানে স্বর্ণের চেইন বিক্রি করতে আসেন। এসময় তার কাছে দুটি চেইন ছিলো তার মধ্যে একটি ৪ আনা ১ রতির চেইনটি এগার হাজার তিনশত টাকায় ক্রয় করেন।

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মজিবুর রহমান জানান মহিলা অভিযোগ নিয়ে থানায় আসে বিষয়টি তদন্ত করার জন্য এসআই শিমুলের উপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আরো খবর »