জাল সনদে চাকরির অভিযোগে শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ

Feature Image

এনামুল হক ইমন, কুমারখালী(কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার কুমারখালী সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকার বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরির অভিযোগে এনটিআরসিএ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে অভিযুক্ত শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ দিয়েছেন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর এনটিআরসিএ এর সহকারী পরিচালক (পমূপ্র-৩) তাজুল ইসলাম ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ দিলেও এখনো পর্যন্ত প্রধান শিক্ষক কোন পদক্ষেপ নেননি বলে জানা গেছে।

অভিযুক্ত শিক্ষিকার নাম আসমাউল হুসনা। তার নিবন্ধনটি সঠিক নয়। সনদটি জাল ও ভূয়া।

সোমবার সরেজমিন গিয়ে এবিষয়ে কুমারখালী সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাঃ আবুল কাশেমের সাথে কথা বললে জানান, গত বৃহস্পতিবার আমি এনটিআরসিএ থেকে আসমাউল হুসনার বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ পত্র হাতে পেয়েছি। ২/১ দিনের মধ্যে তার বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় মামলা দায়ের করা হবে। তিনি আরো জানান আসমাউল হুসনা সহকারী গ্রন্থাগারিক হিসাবে নিয়োগ প্রাপ্ত। তার নিবন্ধনের সনদ জমা দেবার কোন প্রয়োজন ছিলো না।

এ বিষয়ে জানতে বিদ্যালয়ে আসমাউল হুসনাকে পাওয়া না গেলে তাকে মোবাইলে ফোন দিলে তার স্বামী জানান, আমার স্ত্রী আসমাউল হুসনা সহকারী গ্রন্থাগারিক। তার শিক্ষক নিবন্ধন এর কোন প্রয়োজন নেই। প্রধান শিক্ষক মোহাঃ আবুল কাশেম আমার স্ত্রীকে সহকারী গ্রন্থাগারিক থেকে সহকারী শিক্ষক হিসেবে পদায়নের জন্য ৩ লক্ষ টাকা দাবী করেন এবং নিবন্ধন জমা দিতে বলেন। সেজন্যই শিক্ষক নিবন্ধনের সনদ জমা দেয়া হয়েছে। এবং ইতিমধ্যে প্রধান শিক্ষক দাবীকৃত ৩ লাখের মধ্যে আমার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন।

আরো খবর »