কুড়িগ্রামের সাবেক ডিসি সুলতানা পারভীন’র পূনর্বহাল চায় জেলাবাসী

Feature Image

কুড়িগ্রাম জেলার সাবেক ডিসি সুলতানা পারভীনের প্রতি আনীত অভিযোগ ও লঘু দন্ড থেকে সম্প্রতি তিনি অব্যাহতি পেয়েছেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন তদন্ত মোতাবেক বিগত ১০ আগস্ট লঘুদণ্ড হিসেবে ২ বছরের জন্য বেতন বৃদ্ধি স্থগিত করা হয়েছিল সুলতানা পারভীনের। পরবর্তীতে সুলতানা পারভীন লঘুদণ্ড মওকুফের জন্য গত ৬ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপতির কাছে আপিল আবেদন করেন। আবেদন বিবেচনা করে আগের দেওয়া ‘২ বছরের জন্য বেতন বৃদ্ধি স্থগিত রাখা’র দণ্ড বাতিল করে রাষ্ট্রপতি তাকে অভিযোগের সকল দায় থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন।

মহামান্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক কুড়িগ্রামের সাবেক ডিসি সুলতানা পারভীন সকল অভিযোগ ও দন্ড থেকে অব্যাহতি লাভ করলে আবারও তিনি কুড়িগ্রামের জনমানুষের কাছে আলোচনায় ফিরে আসেন। সুশীল সমাজ সহ কুড়িগ্রামের সর্বত্র এখন সুলতানা পারভীনকে কুড়িগ্রামের ডিসি হিসাবে পুনর্বহালের দাবি উঠেছে । অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমন জনবান্ধব একজন জেলা প্রশাসকের কুড়িগ্রাম থেকে বিদায় করে দেয়া ছিল খুবই দুঃখজনক ও অপমানকর।

অনেকের মতে অবহেলিত জনপদ কুড়িগ্রাম জেলায় একজন পরিশ্রমী, আন্তরিক, চৌকষ জেলা প্রশাসক ছিলেন সুলতানা পারভীন। পরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মসূচি নিয়ে তিনি যখন সাফল্যের শেষ প্রান্তে অবস্থান করছিলেন, ঠিক সেই মুহূর্তে এক সাংবাদিককে কেন্দ্র করে তড়িঘড়ি করে তাঁকে কুড়িগ্রাম থেকে প্রত্যাহার করা ছিল সরকারের একটি ভুল সিদ্ধান্ত।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার উত্তর ধরলার হলোখানা ইউনিয়নের সারোডোব গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান বলেন, পরিস্থিতির আকস্মিকতায় সরকারের ভুল সিদ্ধান্তে ডিসি সুলতানা পারভীন প্রত্যাহার হতেই পারে। কিন্তু এখনতো বিষয়টির সন্তোষজনক সমাধান হয়েছে। তিনি দোষী সাব্যস্ত হননি। কুড়িগ্রামের সার্বিক উন্নয়ন এবং তাঁর গৃহীত প্রকল্পগুলোর সফল সমাপ্তির জন্য সরকার তাঁকে আবারও কুড়িগ্রাম জেলার প্রশাসক হিসাবে পুনঃনিয়োগ দিতে পারেন।

রাজারহাট উপজেলার ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের বর্ষীয়ান বাবর আলী মেম্বার বলেন, কুড়িগ্রাম জেলার ইতিহাসে সুলতানা পারভীনের মত এমন পরিশ্রমী, মেধাবী, আন্তরিক ও গণমানুষের কাছে এত জনপ্রিয় আর কোন জেলা প্রশাসক আসেনি। আমরা তাঁকে আবারও কুড়িগ্রামের ডিসি হিসাবে পেতে চাই।

বর্তমানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ওএসডি কর্মকর্তা হিসাবে সুলতানা পারভীনের জন্যে কুড়িগ্রামের সকল সাধারণ গণমানুষের প্রত্যাশা, কেবলমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপে এই বিষয়টির সুরাহা হতে পারে। কুড়িগ্রামের ডিসি হিসাবে সুলতানা পারভীনের পুনর্বহাল এখন জেলাবাসীর প্রাণের দাবি। এই দাবি পূরণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় সহানুভূতি কামনা করেছে কুড়িগ্রাম জেলাবাসী।

আরো খবর »