রমজানেও অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে জিনিসপত্রের দাম

Feature Image

রমজান মাসেও প্রত্যেকটি জিনিসের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ রবিবার রাজধানীর লেডিস ক্লাবের এক ইফতার মাহফিলে এ অভিযোগ করেন তিনি। ‘ওলামা-মাশায়েখ ও এতিমদের সম্মানে’ বিএনপি এই ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে।

তিনি বলেন, ‘এই মাহে রমজানে আমরা আশা করেছিলাম, রোজার মাসে সকল জিনিসপত্রের দাম কমবে।

বিজ্ঞাপন
না কমলেও অত্যন্ত বাড়বে না। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে প্রত্যেকটি জিনিসপত্রের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে! যেটা নিয়ে দলের পক্ষ থেকে আমরা প্রতিবাদ জানিয়েছি এবং বিক্ষোভ করেছি। ‘

এলপিজি গ্যাসের দাম আবারও বৃদ্ধি করা হচ্ছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এপ্রিল মাসের মধ্যে প্রতি কেজি এলপিজি গ্যাসের দাম ৩ দশমিক ৫.০ শতাংশ বাড়িয়ে ১১৯ টাকা ৯৩ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা মার্চে ১১৫ টাকা ৮৮ পয়সা এবং ফেব্রুয়ারিতে ১০৩ টাকা ৩৪ পয়সা ছিল। বিশ্ববাজারের কথা বলে টানা তিন মাসে এলপিজি গ্যাসের দাম বাড়াল!

রাষ্ট্র পরিচালনায় এই সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এই মাহে রমজানেও আমরা শান্তিতে এবং স্বস্তিতে দিন কাটাতে পারছি না। আমাদের প্রত্যেকটি জিনিসের দাম বেড়ে গেছে। তারা (সরকার) এটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ‘

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সবচেয়ে কষ্টের কথা, এই মাহে রমজানের দিনে প্রতিবছর প্রথম রমজানে আমাদের নেত্রীর (খালেদা জিয়া) সঙ্গে আমরা ইফতার করেছি। দুর্ভাগ্য, আমাদের সেই নেত্রী অসুস্থ অবস্থায় গৃহবন্দি রয়েছেন। দুর্ভাগ্যজনকভাবে গণতন্ত্রকে সম্পূর্ণরূপে হত্যা করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আটকে রেখে আজকে ভয়াবহ একটা সূচনা তারা করেছে। ‘

এ সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমানসহ ইফতার মাহফিলে ওলামা-মাশায়েখ ও এতিম শিশুরা উপস্থিত ছিল।

আরো খবর »